পরাগ এলার্জি (কাফুন-শো)

 

   
সিডার (সুগি) সাইপ্রেস (হিনোকি)

     বসন্ত কালে ফুল ফোটে। দেখতে সুন্দর হলেও কিছু কিছু মানুষের জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়এই ফুল। সমস্যাটা অবশ্য ফুল নয়, পরাগ। ফুলের এই পরাগকে জাপানী ভাষায় বলে কাফুন আর পরাগ এলার্জিকে বলা হয় কাফুন-শো। জাপানে ফেব্রুয়ারী-মার্চ মাসে, সিডার(সুগি) ও সাইপ্রেস(হিনোকি) গাছের ফুল ফোটে। সাথে সাথে শুরু হয় পরাগ এলার্জির প্রকোপ। জাপানে প্রায় ১৫% মানুষ এই ঋতুতে পরাগ এলার্জিতে ভোগেন। গত বছরের মতো এ বছরও (২০০৯ সাল) বাতাসে পরাগের পরিমান বেশী থাকার ফলে ভোগাবে বেশী। অনেক প্রবাসীও পরাগ এলার্জিতে ভুগছেন। তবে বিষয়টি অনেক প্রবাসীরই অজানা থাকায় বুঝে উঠতে পারেন না, এলার্জি নাকি ঠান্ডা লেগেছে। এ ক্ষেত্রে, নীচের তালিকাটি আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

 

আপনার উপসর্গঃ ঠান্ডা না এলার্জি
  ঠান্ডা  এলার্জি
Occurrence of symptoms: Symptoms often appear one at a time: first sneezing, then a runny nose, then congestion. Symptoms occur all at once.
Duration of symptoms: Generally last from seven to 10 days. Continue as long as a person is exposed to the allergy-causing agent (allergen).
Mucus: Often a yellowish nasal discharge, due to an infection. Generally a clear, thin, watery discharge.
Sneezing: Less common than with allergies. More common than with colds, especially when sneezing occurs two or three times in a row.
Time of year: More common during winter. More common in spring through fall, when plants are pollinating.
Fever: May be accompanied by a fever. Not usually associated with a fever.

 

     পরাগ এলার্জির জন্য বাজারে অনেক ধরণের ঔষধ রয়েছে। ভাল কাজ করে বলে সুনাম রয়েছে এমন একটি নাকের স্প্রে ও চোখের ড্রপ এর ছবি নীচে দেওয়া হলো। ব্যাবহারের আগে নিয়মাবলী ভাল করে পড়ে নিন। কাজ না হলে বা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হচ্ছে বলে মনে হলে ঔষধ বন্ধ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

 

   
নাকের স্প্রে- এ জি নোজ  চোখের ড্রপ- এ জি আইজ

[পেছনের পাতা]

 
প্রাচ্যের আন্তর্জাল পত্রিকা অভিবাস www.japanbangladesh.com